খিলাফাহর সৈনিকদের এক বরকতময় যুদ্ধের ফলে নাংগারহারের জালালাবাদ শহরের কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রাচীর গুড়িয়ে দেয়া হয়

উলায়াত খোরাসান

আল্লাহ তায়ালার তাওফীকে -গাযওয়ায়ে ইস্তিনযাফের অংশ হিসেবে- গতকাল খিলাফাহর সৈনিকগণ জালালাবাদ শহরের নাংগারহারের কেন্দ্রীয় কারাগারে বিরাট এক হামলা করেন। শুরুতে ইস্তাশহাদী ভাই আবু রাওয়াহাহ আল-মুহাজির (তাকাব্বালাল্লাহ) তার ইস্তিশহাদী গাড়িতে করে জেলখানার ফটকের সামনে এসে কারারক্ষীদের ওপর ইস্তিশহাদী হামলা করেন।
ইস্তিশহাদী হামলার পরপরই ইনগিমাসী সৈনিকেরা কারাগারের প্রাচীর ও টাওয়ারগুলো আইইডি বোমা দিয়ে গুঁড়িয়ে দেন এবং মেশিনগান হাতবোমা ও rpg মিসাইল দ্বারা বাকি কারারক্ষীদের সাথে কয়েক ঘন্টা যাবৎ লড়াই করতে থাকেন। অবশেষে আল্লাহ তা’য়ালা মুজাহিদদেরকে তাদের কারাবন্দী ভাইদের নিকট পৌঁছার তাওফরক দিলেন এবং মুজাহিদগণ বন্দীদেরকে মুক্ত করে বের করে নিয়ে আসলেন।
অপরদিকে একইসময়ে শহরটিতে দাওলাতুল ইসলামের মুজাহিদদের একটি ইউনিট মার্কিন ক্রুসেডারদের সামরিক ঘাটি লক্ষ্য করে কয়েকটি মর্টার শেল নিক্ষেপ করেন।
আর মুজাহিদদের বিস্ফোরক ইউনিট তখন কারাগারগামী সড়কটিতে কয়েকটি আইইডি পুঁতে রাখেন এবং হামলার স্থানটিতে চলে আসা সাপর্টিং বাহিনীর ওপর সেগুলোর বিস্ফোরণ ঘটান।

খিলাফাহর সৈনিকদের বরকতময় গাযওয়াটির ফলাফল :
কেন্দ্রীয় কারাগারটি গুঁড়িয়ে ও জ্বালিয়ে দেয়া হয়। শত শত মুসলিম বন্দীকে মুক্ত করে নিয়ে আসা হয়। প্রায় ১০০ মুরতাদ পুলিশ ও সেনা নিহত হয়। আহত আরো প্রচুর সংখ্যক ।বেশ কয়েকটি সাঁজোয়া কার ও গাড়ি বিধ্বস্ত ও বিকল করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button